চুয়াডাঙ্গা ১০:২৩ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদঃ
চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ চুয়াডাঙ্গায় আন্ত‌জেলা অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় ৬ সদস্য  আটক; চেতনা নাশক ঔষধ উদ্ধার দামুড়হুদার ডুগডুগি বাজারে বিট পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার ফয়জুর রহমান-অপরাধ দমনে পুলিশ কে তথ্য দিয়ে সহায়তা করুন স্ত্রী‌কে সম্ভ্রমহা‌নি করার অপরা‌ধে ক‌বিরাজ‌কে জবাই ক‌রে হত্যা দামুড়হুদায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এমপি টগর-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় জনগণের কথা চিন্তা করে দামুড়হুদায় মাশরুম চাষ সম্প্রসারণে মাঠ দিবসে সাবেক মহাপরিচালক ড. হামিদুর রহমান -চুয়াডাঙ্গার মাটি কৃষির ঘাটি দামুড়হুদায় জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা দামুড়হুদার আটকবর মোড়ে পূর্ববিরোধের জেরে ২জনকে কুপিয়ে, মারপিটে জখম করার অভিযোগ  দামুড়হুদার দুটি রাস্তার উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন কালে এমপি টগর -আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নমূখী সরকার দামুড়হুদায় বোরো ধান সংগ্রহের লটারী অনুষ্ঠিত 

চুয়াডাঙ্গার দু’টি আসনে ১৫ প্রার্থীর মধ্যে৯ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চুয়াডাঙ্গা-দুটি আসনের ১৫ প্রার্থীর মধ্যে দলীয় ও স্বতন্ত্র ৯ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এর মধ্যে
চুয়াডাঙ্গা ১ আসনে রয়েছে ৩ জন ও চুয়াডাঙ্গা ২ আসনে রয়েছে ৬ জন প্রার্থী। নির্বাচন কমিশনের নিতিমালা অনুযায়ী প্রতিদন্ধি প্রার্থী প্রদত্ত বৈধ ভোটের ৮ শতাংশ ভোট না পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়।

রোববার (৭ জানুয়ারি) রাতে চুয়াডাঙ্গার জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা কর্তৃক প্রকাশিত ফলাফল থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে বৈধ ভোট পড়েছে ২ লাখ ৩০ হাজার ২৮৩টি। সেই হিসাবে জামানত টিকাতে হলে প্রয়োজন ছিল ১৮ হাজার ৪২২ ভোট।

নির্বাচন কমিশনের নিতিমালা অনুযায়ী জামানত হারানো প্রার্থীরা হলেন. চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী ও জাতীয় পার্টির জেলা
সভাপতি অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন পেয়েছেন ৫৭১ ভোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) কেন্দ্রীয় মহাসচিব আম প্রতীকের ইদ্রিস চৌধুরী পেয়েছেন ৫৪০ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীকের নৌবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহীদুর রহমান পেয়েছেন ৯৫৮ ভোট।

এদিকে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে বৈধ ভোট পড়েছে ২ লাখ ৫ হাজার ৮১৪টি। সেই হিসাবে প্রার্থীদের জামানত টিকাতে হলে প্রয়োজন ছিল ৮ শতাংশ হারে ১৬ হাজার ৪৬৬ ভোট।

 

চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী ও দলের জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম পেয়েছেন ৭৭৮ ভোট, স্বতন্ত্র ঈগল প্রতীকের প্রার্থী জাতীয় দৈনিক সকালের সময়ের সম্পাদক প্রকাশক নুর হাকিম ২ হাজার ৬৫১ ভোট, স্বতন্ত্র ফ্রিজ প্রতীকের নজরুল ইসলাম মল্লিক পেয়েছেন ৮২৯ ভোট, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) মশাল প্রতীকের মনোনিত প্রার্থী জেলা কমিটির প্রচার সম্পাদক দেওয়ান মো. ইয়াছিন উল্লাহ পেয়েছেন ২১১ ভোট, জাকের পার্টির গোলাপ ফুল প্রতীকের মনোনিত প্রার্থী জেলা জাকের পার্টির সভাপতি
আবদুল লতিফ খান পেয়েছেন ৩ হাজার ২৭১ ভোট এবং ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মহাসচিব আম প্রতীকের মনোনিত প্রার্থী ইদ্রিস চৌধুরী পেয়েছেন ৪৩০টি ভোট।

 

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোতাওয়াক্কিল রহমান জানান, নিয়ম অনুযায়ী কোনো প্রার্থীকে জামানত ফেরত পেতে হলে মোট বৈধ ভোটের আট ভাগের এক ভাগ থেকে অন্তত একটি ভোট বেশি পেতে হবে। এই নির্বাচনে যারা তা পাননি, তারা জামানতের টাকা ফেরত পাবেন না।

প্রসঙ্গঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

চুয়াডাঙ্গার দু’টি আসনে ১৫ প্রার্থীর মধ্যে৯ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত

প্রকাশ : ০৩:৪৪:২৯ অপরাহ্ন, সোমবার, ৮ জানুয়ারী ২০২৪

দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চুয়াডাঙ্গা-দুটি আসনের ১৫ প্রার্থীর মধ্যে দলীয় ও স্বতন্ত্র ৯ প্রার্থীর জামানত বাজেয়াপ্ত হয়েছে। এর মধ্যে
চুয়াডাঙ্গা ১ আসনে রয়েছে ৩ জন ও চুয়াডাঙ্গা ২ আসনে রয়েছে ৬ জন প্রার্থী। নির্বাচন কমিশনের নিতিমালা অনুযায়ী প্রতিদন্ধি প্রার্থী প্রদত্ত বৈধ ভোটের ৮ শতাংশ ভোট না পেলে তার জামানত বাজেয়াপ্ত হয়।

রোববার (৭ জানুয়ারি) রাতে চুয়াডাঙ্গার জেলা প্রশাসক ও রিটার্নিং কর্মকর্তা কর্তৃক প্রকাশিত ফলাফল থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

চুয়াডাঙ্গা-১ আসনে বৈধ ভোট পড়েছে ২ লাখ ৩০ হাজার ২৮৩টি। সেই হিসাবে জামানত টিকাতে হলে প্রয়োজন ছিল ১৮ হাজার ৪২২ ভোট।

নির্বাচন কমিশনের নিতিমালা অনুযায়ী জামানত হারানো প্রার্থীরা হলেন. চুয়াডাঙ্গা-১ আসনের লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থী ও জাতীয় পার্টির জেলা
সভাপতি অ্যাডভোকেট সোহরাব হোসেন পেয়েছেন ৫৭১ ভোট, ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) কেন্দ্রীয় মহাসচিব আম প্রতীকের ইদ্রিস চৌধুরী পেয়েছেন ৫৪০ ভোট ও স্বতন্ত্র প্রার্থী ট্রাক প্রতীকের নৌবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কর্মকর্তা শহীদুর রহমান পেয়েছেন ৯৫৮ ভোট।

এদিকে চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে বৈধ ভোট পড়েছে ২ লাখ ৫ হাজার ৮১৪টি। সেই হিসাবে প্রার্থীদের জামানত টিকাতে হলে প্রয়োজন ছিল ৮ শতাংশ হারে ১৬ হাজার ৪৬৬ ভোট।

 

চুয়াডাঙ্গা-২ আসনে জাতীয় পার্টি মনোনীত প্রার্থী ও দলের জেলা কমিটির সাধারণ সম্পাদক রবিউল ইসলাম পেয়েছেন ৭৭৮ ভোট, স্বতন্ত্র ঈগল প্রতীকের প্রার্থী জাতীয় দৈনিক সকালের সময়ের সম্পাদক প্রকাশক নুর হাকিম ২ হাজার ৬৫১ ভোট, স্বতন্ত্র ফ্রিজ প্রতীকের নজরুল ইসলাম মল্লিক পেয়েছেন ৮২৯ ভোট, জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দলের (জাসদ) মশাল প্রতীকের মনোনিত প্রার্থী জেলা কমিটির প্রচার সম্পাদক দেওয়ান মো. ইয়াছিন উল্লাহ পেয়েছেন ২১১ ভোট, জাকের পার্টির গোলাপ ফুল প্রতীকের মনোনিত প্রার্থী জেলা জাকের পার্টির সভাপতি
আবদুল লতিফ খান পেয়েছেন ৩ হাজার ২৭১ ভোট এবং ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) মহাসচিব আম প্রতীকের মনোনিত প্রার্থী ইদ্রিস চৌধুরী পেয়েছেন ৪৩০টি ভোট।

 

সহকারী রিটার্নিং কর্মকর্তা ও জেলা নির্বাচন কর্মকর্তা মোতাওয়াক্কিল রহমান জানান, নিয়ম অনুযায়ী কোনো প্রার্থীকে জামানত ফেরত পেতে হলে মোট বৈধ ভোটের আট ভাগের এক ভাগ থেকে অন্তত একটি ভোট বেশি পেতে হবে। এই নির্বাচনে যারা তা পাননি, তারা জামানতের টাকা ফেরত পাবেন না।