চুয়াডাঙ্গা ১০:২৫ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদঃ
চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ চুয়াডাঙ্গায় আন্ত‌জেলা অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় ৬ সদস্য  আটক; চেতনা নাশক ঔষধ উদ্ধার দামুড়হুদার ডুগডুগি বাজারে বিট পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার ফয়জুর রহমান-অপরাধ দমনে পুলিশ কে তথ্য দিয়ে সহায়তা করুন স্ত্রী‌কে সম্ভ্রমহা‌নি করার অপরা‌ধে ক‌বিরাজ‌কে জবাই ক‌রে হত্যা দামুড়হুদায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এমপি টগর-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় জনগণের কথা চিন্তা করে দামুড়হুদায় মাশরুম চাষ সম্প্রসারণে মাঠ দিবসে সাবেক মহাপরিচালক ড. হামিদুর রহমান -চুয়াডাঙ্গার মাটি কৃষির ঘাটি দামুড়হুদায় জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা দামুড়হুদার আটকবর মোড়ে পূর্ববিরোধের জেরে ২জনকে কুপিয়ে, মারপিটে জখম করার অভিযোগ  দামুড়হুদার দুটি রাস্তার উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন কালে এমপি টগর -আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নমূখী সরকার দামুড়হুদায় বোরো ধান সংগ্রহের লটারী অনুষ্ঠিত 

রমজানকে সামনে রেখে বেনাপোল বন্দর দিয়ে বেড়েছে ভোগ্যপণ্য আমদানি ছোলা ও ফল

রমজানকে সামনে রেখে বেনাপোল বন্দর দিয়ে বেড়েছে ভোগ্যপণ্য আমদানি। বেশি আসছে ছোলা ও বিভিন্ন ধরনের ফল। আমদানি স্বাভাবিক থাকলে আগামী দুই মাসে ভোগ্যপণ্যের দাম অনেকটা কমে আসার সম্ভাবনা করছেন ব্যবসায়ীরা। গত তিন দিনে কয়েকশ‘ ট্রাক ভারত থেকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রবেশ করছে বাংলাদেশে। দ্রুত খালাস প্রক্রিয়া শেষে পাঠানো হচ্ছে দেশের বিভিন্ন এলাকায়।

 

তবে জায়গা স্বল্পতার কারণে পণ্য খালাসে বেশি সময় লাগছে বলে দাবি বন্দর কর্তৃপক্ষের। গত তিন দিনে ৩ শ‘ ২০ ট্রাক ভোগ্যপণ্য ও ফল আমদানি হয়েছে বেনাপোল বন্দর দিয়ে। মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে প্রায় ৫৫ ট্রাক ভোগ্যপণ্য ও ফল আমদানি হয়েছে। তবে এ তিনদিনে ফল আমদানির পরিমাণ বেশি। চিনির শুল্ক কমানোর পর এ পর্যন্ত কোন চিনি, খেজুর আমদানি হয়নি ভারত থেকে। তবে রোজা শুরুর আগেই খেজুর আমদানি হবে বলে জানান কয়েকজন ব্যবসায়ী। রমজানকে সামনে রেখে ভারত থেকে আমদানি করা হচ্ছে ছোলা ও বিভিন্ন রকম ফল। ঋণপত্র খোলার জটিলতা নিরসন হওয়ার পরপরই ছোলা আমদানি শুরু হয়ে গেছে।

 

তবে ফল আমদানি হচ্ছে অনেক আগে থেকেই। এসব পণ্যের বাজারদর স্বাভাবিক রাখতে এলসি সহজের বিষয়ে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে আগেই নির্দেশ দিয়েছে সরকার। একারণে আমদানি করা খাদ্যদ্রব্যের দাম সহনীয় থাকার আশা ব্যবসায়ীদের। কিন্থু বাজারে দাম আকাশচুম্বী। এদিকে বেনাপোল বন্দরের প্রতিকেজি ছোলা পাইকারি বাজারে ৭৮ টাকা ও খুচরা বাজারে ৮৫ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া পাইকারি বাজারে চিনি ১০৩ টাকা, পেঁয়াজ ২০ টাকা, আপেল ১৮০, আঙুর ২০০ টাকা ও কমলা ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর খুচরা বাজারে চিনি ১১২ টাকা, পেঁয়াজ ২৫ থেকে ৩০ টাকা, আপেল ২৩০, আঙুর ২২০ টাকা ও কমলা ২৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা বলেন, চাহিদা থাকায় ভারত থেকে অধিক পরিমাণে ছোলা ও ফল আমদানি করা হচ্ছে।

 

 

এছাড়া ব্যাংক এলসি দেয়ায় খাদ্য আমদানি সহজ হয়েছে বলে জানান তারা। আর ক্রেতারা জানান, রমজান এলেই নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যায়। এজন্য দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে রোজায় বাজার মনিটরিং জোরদার করার দাবি তাদের। বেনাপোল বাজারের আড়তদার ইছাহাক উদ্দিন বলেন, ভারত থেকে ছোলা আমদানি বেড়েছে। কাজেই সরবরাহ বেশি হওয়ার কারণে ছোলার দামও কমছে। কিন্থু খোলা বাজারে দাম তেমন কমছে না। বাজার মনিটরিং জোরদার করার দাবি তার। এদিকে বেনাপোল স্থলবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-সহকারী হেমন্ত কুমার সরকার জানান, ভারত থেকে আমদানিকৃত ভোগ্যপণ্যগুলো খাওয়ার উপযোগী কিনা যাচাই করতে মান পরীক্ষা করা হচ্ছে।

 

এরপর বন্দর থেকে ছাড়পত্র দেয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে বেনাপোল স্থলবন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আব্দুল জলিল বলেন, ভোগ্যপণ্য দ্রুত বন্দর থেকে খালাস করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বছরে বাংলাদেশে ১ লাখ ২০ হাজার টন ছোলার চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে শুধু রমজান মাসেই ইফতারের জন্য ৮০ হাজার টন ছোলার প্রয়োজন হয়।

জনপ্রিয় সংবাদ

চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

রমজানকে সামনে রেখে বেনাপোল বন্দর দিয়ে বেড়েছে ভোগ্যপণ্য আমদানি ছোলা ও ফল

প্রকাশ : ১২:২৫:৪২ অপরাহ্ন, বুধবার, ১ মার্চ ২০২৩

রমজানকে সামনে রেখে বেনাপোল বন্দর দিয়ে বেড়েছে ভোগ্যপণ্য আমদানি। বেশি আসছে ছোলা ও বিভিন্ন ধরনের ফল। আমদানি স্বাভাবিক থাকলে আগামী দুই মাসে ভোগ্যপণ্যের দাম অনেকটা কমে আসার সম্ভাবনা করছেন ব্যবসায়ীরা। গত তিন দিনে কয়েকশ‘ ট্রাক ভারত থেকে বেনাপোল বন্দর দিয়ে প্রবেশ করছে বাংলাদেশে। দ্রুত খালাস প্রক্রিয়া শেষে পাঠানো হচ্ছে দেশের বিভিন্ন এলাকায়।

 

তবে জায়গা স্বল্পতার কারণে পণ্য খালাসে বেশি সময় লাগছে বলে দাবি বন্দর কর্তৃপক্ষের। গত তিন দিনে ৩ শ‘ ২০ ট্রাক ভোগ্যপণ্য ও ফল আমদানি হয়েছে বেনাপোল বন্দর দিয়ে। মঙ্গলবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বেনাপোল বন্দর দিয়ে ভারত থেকে প্রায় ৫৫ ট্রাক ভোগ্যপণ্য ও ফল আমদানি হয়েছে। তবে এ তিনদিনে ফল আমদানির পরিমাণ বেশি। চিনির শুল্ক কমানোর পর এ পর্যন্ত কোন চিনি, খেজুর আমদানি হয়নি ভারত থেকে। তবে রোজা শুরুর আগেই খেজুর আমদানি হবে বলে জানান কয়েকজন ব্যবসায়ী। রমজানকে সামনে রেখে ভারত থেকে আমদানি করা হচ্ছে ছোলা ও বিভিন্ন রকম ফল। ঋণপত্র খোলার জটিলতা নিরসন হওয়ার পরপরই ছোলা আমদানি শুরু হয়ে গেছে।

 

তবে ফল আমদানি হচ্ছে অনেক আগে থেকেই। এসব পণ্যের বাজারদর স্বাভাবিক রাখতে এলসি সহজের বিষয়ে বাণিজ্যিক ব্যাংকগুলোকে আগেই নির্দেশ দিয়েছে সরকার। একারণে আমদানি করা খাদ্যদ্রব্যের দাম সহনীয় থাকার আশা ব্যবসায়ীদের। কিন্থু বাজারে দাম আকাশচুম্বী। এদিকে বেনাপোল বন্দরের প্রতিকেজি ছোলা পাইকারি বাজারে ৭৮ টাকা ও খুচরা বাজারে ৮৫ টাকা পর্যন্ত বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া পাইকারি বাজারে চিনি ১০৩ টাকা, পেঁয়াজ ২০ টাকা, আপেল ১৮০, আঙুর ২০০ টাকা ও কমলা ১৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। আর খুচরা বাজারে চিনি ১১২ টাকা, পেঁয়াজ ২৫ থেকে ৩০ টাকা, আপেল ২৩০, আঙুর ২২০ টাকা ও কমলা ২৩০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। ব্যবসায়ীরা বলেন, চাহিদা থাকায় ভারত থেকে অধিক পরিমাণে ছোলা ও ফল আমদানি করা হচ্ছে।

 

 

এছাড়া ব্যাংক এলসি দেয়ায় খাদ্য আমদানি সহজ হয়েছে বলে জানান তারা। আর ক্রেতারা জানান, রমজান এলেই নিত্যপণ্যের দাম বেড়ে যায়। এজন্য দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে রোজায় বাজার মনিটরিং জোরদার করার দাবি তাদের। বেনাপোল বাজারের আড়তদার ইছাহাক উদ্দিন বলেন, ভারত থেকে ছোলা আমদানি বেড়েছে। কাজেই সরবরাহ বেশি হওয়ার কারণে ছোলার দামও কমছে। কিন্থু খোলা বাজারে দাম তেমন কমছে না। বাজার মনিটরিং জোরদার করার দাবি তার। এদিকে বেনাপোল স্থলবন্দরের উদ্ভিদ সংগনিরোধ কেন্দ্রের উপ-সহকারী হেমন্ত কুমার সরকার জানান, ভারত থেকে আমদানিকৃত ভোগ্যপণ্যগুলো খাওয়ার উপযোগী কিনা যাচাই করতে মান পরীক্ষা করা হচ্ছে।

 

এরপর বন্দর থেকে ছাড়পত্র দেয়া হচ্ছে। এ বিষয়ে বেনাপোল স্থলবন্দরের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক আব্দুল জলিল বলেন, ভোগ্যপণ্য দ্রুত বন্দর থেকে খালাস করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা ও কর্মচারীদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বছরে বাংলাদেশে ১ লাখ ২০ হাজার টন ছোলার চাহিদা রয়েছে। এর মধ্যে শুধু রমজান মাসেই ইফতারের জন্য ৮০ হাজার টন ছোলার প্রয়োজন হয়।