চুয়াডাঙ্গা ১২:৫০ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদঃ
চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ চুয়াডাঙ্গায় আন্ত‌জেলা অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় ৬ সদস্য  আটক; চেতনা নাশক ঔষধ উদ্ধার দামুড়হুদার ডুগডুগি বাজারে বিট পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার ফয়জুর রহমান-অপরাধ দমনে পুলিশ কে তথ্য দিয়ে সহায়তা করুন স্ত্রী‌কে সম্ভ্রমহা‌নি করার অপরা‌ধে ক‌বিরাজ‌কে জবাই ক‌রে হত্যা দামুড়হুদায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এমপি টগর-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় জনগণের কথা চিন্তা করে দামুড়হুদায় মাশরুম চাষ সম্প্রসারণে মাঠ দিবসে সাবেক মহাপরিচালক ড. হামিদুর রহমান -চুয়াডাঙ্গার মাটি কৃষির ঘাটি দামুড়হুদায় জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা দামুড়হুদার আটকবর মোড়ে পূর্ববিরোধের জেরে ২জনকে কুপিয়ে, মারপিটে জখম করার অভিযোগ  দামুড়হুদার দুটি রাস্তার উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন কালে এমপি টগর -আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নমূখী সরকার দামুড়হুদায় বোরো ধান সংগ্রহের লটারী অনুষ্ঠিত 

গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি নুর, সাধারণ সম্পাদক রাশেদ

গণঅধিকার পরিষদের প্রথম জাতীয় কাউন্সিলে সভাপতি পদে নুরুল হক নুর আর সাধারণ সম্পাদক পদে রাশেদ খান নির্বাচিত হয়েছেন। নুর ১৩৫ ভোট এবং রাশেদ ১০৯ ভোট পেয়েছেন। দলের নেতৃত্ব নির্বাচনের এ ভোটে ৮৫ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে দলটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

 

সোমবার (১০ জুলাই) রাজধানীর পুরানা পল্টনে ফকিরাপুলের প্রীতম জামান টাওয়ারে গণঅধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দুপুর ১টায় কাউন্সিলের ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ভোটগ্রহণ শেষ হয় বিকেল ৫টায়। যদিও ভোট শুরুর কথা ছিল সকাল ১০টায়। বিকেল ৬টা ৪৫ মিনিটে ভোটগণনা চলছে বলে জানানো হয়। এরপর রাত ১০টা ১৫ মিনিটে ভোটের ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

 

 

কাউন্সিলে মোট ভোটার ছিলেন ২১৬ জন। এরমধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটির ভোটার ১২৬ জন। এতে সভাপতি পদে চারজন প্রার্থী ভোটে লড়েছেন। তারা হলেন- নুরুল হক নুর, নাজমুল উস সাকিব, বায়েজিদ শাহেদ এবং জাফর মাহমুদ। সাধারণ সম্পাদক পদেও চারজন প্রার্থী ছিলেন। তারা হলেন- রাশেদ খান, মাহফুজুর রহমান খান, বিপ্লব কুমার পোদ্দার এবং জিল্লু খান।

 

 

অন্যদিকে উচ্চতর পরিষদে আট পদের বিপরীতে লড়ছেন ১৮ জন। তারা হলেন- আবু হানিফ, শাকিল উজ্জামান, হানিফ খান সজিব, ফিরজ আহমেদ, সরকার নুরে এরশাদ সিদ্দিকী, জামান আহমেদ সিদ্দিকী, শহিদুল ইসলাম ফাহিম, আনিসুর রহমান মুন্না, ওয়াহিদুল রহমান মিল্কিওয়ে, শাফায়েত হোসেন, মঞ্জুর ইসলাম, সাদ্দাম হোসেন, আব্দুস জাহের, আনিসুর রহমান মুন্না, আবদুল্লাহ আল মামুন সুজন, মিনা আল আমিন, জসিম উদ্দিন ও ফাতেমা তাসনীম।

 

নির্বাচিত আটজন হলেন- আবু হানিফ, শাকিল উজ্জামান, হানিফ খান সজীব, শহীদুল ইসলাম ফাহিম, ফাতেমা তাসনীম, আব্দুজ জাহের, জসিম উদ্দিন আকাশ ও সরকার নুরে এরশাদ সিদ্দিকী।

 

গত ২ জুলাই গণঅধিকার পরিষদের জাতীয় কাউন্সিল ও উচ্চতর পরিষদের নির্বাচন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে চার সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচন ব্যবস্থাপনা বোর্ড গঠন করা হয়। এতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার করা হয় গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুল ইসলামকে। নির্বাচন কমিশনার করা হয় সহকারী আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট তৌফিক শাহরিয়ার, সহকারী আহ্বায়ক মাহবুব জনি এবং সদস্য তোফাজ্জল হোসেনকে।

 

গণঅধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুরের অনুসারীদের ঘোষিত এ কাউন্সিলে অংশ না নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন আহ্বায়ক রেজা কিবরিয়ার সমর্থকরা। কিন্তু শেষ সময়ে রেজা কিবরিয়ার ঘোষিত সদস্যসচিব হাসান আল মামুন সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হন।

 

২০২১ সালে গণঅধিকার পরিষদ প্রতিষ্ঠা হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে চলেছে দলের কার্যক্রম। সোমবার কাউন্সিলের মধ্যে দিয়ে দলটি প্রথম নেতৃত্ব পেয়েছে। তবে পূর্ণাঙ্গ কমিটি হওয়ার আগেই দলে ভাঙন দেখা দিয়েছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

গণঅধিকার পরিষদের সভাপতি নুর, সাধারণ সম্পাদক রাশেদ

প্রকাশ : ০৮:২১:৩৮ পূর্বাহ্ন, মঙ্গলবার, ১১ জুলাই ২০২৩

গণঅধিকার পরিষদের প্রথম জাতীয় কাউন্সিলে সভাপতি পদে নুরুল হক নুর আর সাধারণ সম্পাদক পদে রাশেদ খান নির্বাচিত হয়েছেন। নুর ১৩৫ ভোট এবং রাশেদ ১০৯ ভোট পেয়েছেন। দলের নেতৃত্ব নির্বাচনের এ ভোটে ৮৫ শতাংশ ভোট পড়েছে বলে দলটির পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে।

 

সোমবার (১০ জুলাই) রাজধানীর পুরানা পল্টনে ফকিরাপুলের প্রীতম জামান টাওয়ারে গণঅধিকার পরিষদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে দুপুর ১টায় কাউন্সিলের ভোটগ্রহণ শুরু হয়। ভোটগ্রহণ শেষ হয় বিকেল ৫টায়। যদিও ভোট শুরুর কথা ছিল সকাল ১০টায়। বিকেল ৬টা ৪৫ মিনিটে ভোটগণনা চলছে বলে জানানো হয়। এরপর রাত ১০টা ১৫ মিনিটে ভোটের ফলাফল ঘোষণা করা হয়।

 

 

কাউন্সিলে মোট ভোটার ছিলেন ২১৬ জন। এরমধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটির ভোটার ১২৬ জন। এতে সভাপতি পদে চারজন প্রার্থী ভোটে লড়েছেন। তারা হলেন- নুরুল হক নুর, নাজমুল উস সাকিব, বায়েজিদ শাহেদ এবং জাফর মাহমুদ। সাধারণ সম্পাদক পদেও চারজন প্রার্থী ছিলেন। তারা হলেন- রাশেদ খান, মাহফুজুর রহমান খান, বিপ্লব কুমার পোদ্দার এবং জিল্লু খান।

 

 

অন্যদিকে উচ্চতর পরিষদে আট পদের বিপরীতে লড়ছেন ১৮ জন। তারা হলেন- আবু হানিফ, শাকিল উজ্জামান, হানিফ খান সজিব, ফিরজ আহমেদ, সরকার নুরে এরশাদ সিদ্দিকী, জামান আহমেদ সিদ্দিকী, শহিদুল ইসলাম ফাহিম, আনিসুর রহমান মুন্না, ওয়াহিদুল রহমান মিল্কিওয়ে, শাফায়েত হোসেন, মঞ্জুর ইসলাম, সাদ্দাম হোসেন, আব্দুস জাহের, আনিসুর রহমান মুন্না, আবদুল্লাহ আল মামুন সুজন, মিনা আল আমিন, জসিম উদ্দিন ও ফাতেমা তাসনীম।

 

নির্বাচিত আটজন হলেন- আবু হানিফ, শাকিল উজ্জামান, হানিফ খান সজীব, শহীদুল ইসলাম ফাহিম, ফাতেমা তাসনীম, আব্দুজ জাহের, জসিম উদ্দিন আকাশ ও সরকার নুরে এরশাদ সিদ্দিকী।

 

গত ২ জুলাই গণঅধিকার পরিষদের জাতীয় কাউন্সিল ও উচ্চতর পরিষদের নির্বাচন সম্পন্ন করার লক্ষ্যে চার সদস্যবিশিষ্ট নির্বাচন ব্যবস্থাপনা বোর্ড গঠন করা হয়। এতে প্রধান নির্বাচন কমিশনার করা হয় গণঅধিকার পরিষদের যুগ্ম আহ্বায়ক আরিফুল ইসলামকে। নির্বাচন কমিশনার করা হয় সহকারী আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট তৌফিক শাহরিয়ার, সহকারী আহ্বায়ক মাহবুব জনি এবং সদস্য তোফাজ্জল হোসেনকে।

 

গণঅধিকার পরিষদের সদস্য সচিব নুরুল হক নুরের অনুসারীদের ঘোষিত এ কাউন্সিলে অংশ না নেওয়ার ঘোষণা দিয়েছিলেন আহ্বায়ক রেজা কিবরিয়ার সমর্থকরা। কিন্তু শেষ সময়ে রেজা কিবরিয়ার ঘোষিত সদস্যসচিব হাসান আল মামুন সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হন।

 

২০২১ সালে গণঅধিকার পরিষদ প্রতিষ্ঠা হয়। প্রতিষ্ঠার পর থেকেই আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে চলেছে দলের কার্যক্রম। সোমবার কাউন্সিলের মধ্যে দিয়ে দলটি প্রথম নেতৃত্ব পেয়েছে। তবে পূর্ণাঙ্গ কমিটি হওয়ার আগেই দলে ভাঙন দেখা দিয়েছে।