চুয়াডাঙ্গা ০১:৪৬ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদঃ
চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ চুয়াডাঙ্গায় আন্ত‌জেলা অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় ৬ সদস্য  আটক; চেতনা নাশক ঔষধ উদ্ধার দামুড়হুদার ডুগডুগি বাজারে বিট পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার ফয়জুর রহমান-অপরাধ দমনে পুলিশ কে তথ্য দিয়ে সহায়তা করুন স্ত্রী‌কে সম্ভ্রমহা‌নি করার অপরা‌ধে ক‌বিরাজ‌কে জবাই ক‌রে হত্যা দামুড়হুদায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এমপি টগর-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় জনগণের কথা চিন্তা করে দামুড়হুদায় মাশরুম চাষ সম্প্রসারণে মাঠ দিবসে সাবেক মহাপরিচালক ড. হামিদুর রহমান -চুয়াডাঙ্গার মাটি কৃষির ঘাটি দামুড়হুদায় জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা দামুড়হুদার আটকবর মোড়ে পূর্ববিরোধের জেরে ২জনকে কুপিয়ে, মারপিটে জখম করার অভিযোগ  দামুড়হুদার দুটি রাস্তার উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন কালে এমপি টগর -আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নমূখী সরকার দামুড়হুদায় বোরো ধান সংগ্রহের লটারী অনুষ্ঠিত 
মাকে ছেড়ে একটি রাত না কাটানো ছেলে নাশকতা মামলায় জেলে

ছেলেকে শেষবারের মতো দেখার আকুতি পূরণ হলো না মায়ের

বৃদ্ধা রহিমা বেগমের (৭২) ছেলে আব্দুর রউব জেলেবন্দি। তার স্বামী ইয়ার উদ্দীন মারা গেছেন প্রায় ১৩ বছর আগে।

প্রতিবেশীদের ভাষ্য, মায়ের নয়নের মণি ছিল রউব। মাকে রেখে রউব কোথাও গিয়ে রাত কাটাতেন না। অথচ পুলিশের দায়ের করা নাশকতার মামলায় সেই ছেলে মায়ের চোখের আড়াল প্রায় ১ মাস। এ কারণে সারাক্ষণ বৃদ্ধা মায়ের চোখের কোণে জল জমে থাকত। হাউমাউ করে কান্না করতেন দুই অবুঝ নাতিদেরকে জড়িয়ে ধরে। ছেলেকে শেষবারের মতো একবার দেখার আকুতি ছিল তাঁর। তবে তা অপূর্ণই থাকল। মা’কে শেষ বিদায় জানাতে রউব বাড়ি ফিরলেন ঠিকই কিন্ত ৩ ঘণ্টার জন্য প্যারোলে (সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১টা) মুক্তি নিয়ে।

গত বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) দুপুর ১ টার দিকে বার্ধ্যক্য জনিত কারনে আব্দুর রউফের মা নিজ বাড়িইে মারা জান। গত শুক্রবার (০১ ডিশেম্বর) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে তার জানাযা শেষে দাফন করা হয় গ্রাম্য কবরস্থানে। রউবের বাড়ি চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার নাটুদহ ইউনিয়নের চারুলিয়া গ্রামে। রউব ১১ টার দিকে নিজ নিজ বাড়িতে পৌছালে তখন পরিবারের লোকজন তার স্ত্রী ও দুই শিশু সন্তানের কান্না আর আকুতিতে কেদেছেন অন্যরাও। এসময় আবেগপ্রবন হয়ে পড়ে অনেকেই শিশুদের কান্নায় নিজেদের চোখে পানি ধরে রাখতে পারিনি।

পরিবার ও প্রতিবেশী সুত্রে জানাযায়, রউবের মা দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন এবং শরীরটা ভালো যাচ্ছিল না। ছেলে জেলে থাকায় সব সময় চিন্তা করতেন।  মৃত্যুর আগে এক নজর ছেলের মুখটা দেখার আকুতি ছিল মা রহিমার। কিন্তু তাঁর সে আশা পূরণ হলো না। গত শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ টায় জানাজা শেষে স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এসময় জেলা পুলিশের একটি চৌকস টিম সহ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

মাকে শেষবারের মত দেখতে ৩ ঘন্টার প্যারোলে মুক্তি পান জামায়াত নেতা আব্দুর রউফ। মুক্তিতে মায়ের জানাযা নামাজে শরিক শেষে দাফন কার্য সম্পন্ন করে পরিবারের লোকজনের সাথে সাক্ষাৎ করে আবার কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

দামুড়হুদা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলমগীর কবির বলেন, মায়ের মৃত্যুর কারণে রউবকে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত প্যারোলে মুক্তি দেওয়া হয়েছিলো। নির্দিষ্ট সময় অতিবাহিত হলে সঙ্গে থাকা জেলা পুলিশ তাঁকে নিয়ে পুনরায় জেল হাজতে পাঠান

জনপ্রিয় সংবাদ

চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

মাকে ছেড়ে একটি রাত না কাটানো ছেলে নাশকতা মামলায় জেলে

ছেলেকে শেষবারের মতো দেখার আকুতি পূরণ হলো না মায়ের

প্রকাশ : ০১:৪১:১৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২ ডিসেম্বর ২০২৩

বৃদ্ধা রহিমা বেগমের (৭২) ছেলে আব্দুর রউব জেলেবন্দি। তার স্বামী ইয়ার উদ্দীন মারা গেছেন প্রায় ১৩ বছর আগে।

প্রতিবেশীদের ভাষ্য, মায়ের নয়নের মণি ছিল রউব। মাকে রেখে রউব কোথাও গিয়ে রাত কাটাতেন না। অথচ পুলিশের দায়ের করা নাশকতার মামলায় সেই ছেলে মায়ের চোখের আড়াল প্রায় ১ মাস। এ কারণে সারাক্ষণ বৃদ্ধা মায়ের চোখের কোণে জল জমে থাকত। হাউমাউ করে কান্না করতেন দুই অবুঝ নাতিদেরকে জড়িয়ে ধরে। ছেলেকে শেষবারের মতো একবার দেখার আকুতি ছিল তাঁর। তবে তা অপূর্ণই থাকল। মা’কে শেষ বিদায় জানাতে রউব বাড়ি ফিরলেন ঠিকই কিন্ত ৩ ঘণ্টার জন্য প্যারোলে (সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১টা) মুক্তি নিয়ে।

গত বৃহস্পতিবার (৩০ নভেম্বর) দুপুর ১ টার দিকে বার্ধ্যক্য জনিত কারনে আব্দুর রউফের মা নিজ বাড়িইে মারা জান। গত শুক্রবার (০১ ডিশেম্বর) বেলা সাড়ে ১১ টার দিকে তার জানাযা শেষে দাফন করা হয় গ্রাম্য কবরস্থানে। রউবের বাড়ি চুয়াডাঙ্গার দামুড়হুদা উপজেলার নাটুদহ ইউনিয়নের চারুলিয়া গ্রামে। রউব ১১ টার দিকে নিজ নিজ বাড়িতে পৌছালে তখন পরিবারের লোকজন তার স্ত্রী ও দুই শিশু সন্তানের কান্না আর আকুতিতে কেদেছেন অন্যরাও। এসময় আবেগপ্রবন হয়ে পড়ে অনেকেই শিশুদের কান্নায় নিজেদের চোখে পানি ধরে রাখতে পারিনি।

পরিবার ও প্রতিবেশী সুত্রে জানাযায়, রউবের মা দীর্ঘদিন যাবৎ বিভিন্ন রোগে ভুগছিলেন এবং শরীরটা ভালো যাচ্ছিল না। ছেলে জেলে থাকায় সব সময় চিন্তা করতেন।  মৃত্যুর আগে এক নজর ছেলের মুখটা দেখার আকুতি ছিল মা রহিমার। কিন্তু তাঁর সে আশা পূরণ হলো না। গত শুক্রবার বেলা সাড়ে ১১ টায় জানাজা শেষে স্থানীয় কবরস্থানে দাফন করা হয়।

এসময় জেলা পুলিশের একটি চৌকস টিম সহ পুলিশের বিভিন্ন ইউনিটের গোয়েন্দা সংস্থার সদস্যরা উপস্থিত ছিলেন।

মাকে শেষবারের মত দেখতে ৩ ঘন্টার প্যারোলে মুক্তি পান জামায়াত নেতা আব্দুর রউফ। মুক্তিতে মায়ের জানাযা নামাজে শরিক শেষে দাফন কার্য সম্পন্ন করে পরিবারের লোকজনের সাথে সাক্ষাৎ করে আবার কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

দামুড়হুদা মডেল থানার অফিসার ইনচার্জ (ওসি) আলমগীর কবির বলেন, মায়ের মৃত্যুর কারণে রউবকে সকাল ১০ টা থেকে দুপুর ১ টা পর্যন্ত প্যারোলে মুক্তি দেওয়া হয়েছিলো। নির্দিষ্ট সময় অতিবাহিত হলে সঙ্গে থাকা জেলা পুলিশ তাঁকে নিয়ে পুনরায় জেল হাজতে পাঠান