চুয়াডাঙ্গা ০১:০০ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৫ জুন ২০২৪, ৩১ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদঃ
চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ চুয়াডাঙ্গায় আন্ত‌জেলা অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় ৬ সদস্য  আটক; চেতনা নাশক ঔষধ উদ্ধার দামুড়হুদার ডুগডুগি বাজারে বিট পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার ফয়জুর রহমান-অপরাধ দমনে পুলিশ কে তথ্য দিয়ে সহায়তা করুন স্ত্রী‌কে সম্ভ্রমহা‌নি করার অপরা‌ধে ক‌বিরাজ‌কে জবাই ক‌রে হত্যা দামুড়হুদায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এমপি টগর-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় জনগণের কথা চিন্তা করে দামুড়হুদায় মাশরুম চাষ সম্প্রসারণে মাঠ দিবসে সাবেক মহাপরিচালক ড. হামিদুর রহমান -চুয়াডাঙ্গার মাটি কৃষির ঘাটি দামুড়হুদায় জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা দামুড়হুদার আটকবর মোড়ে পূর্ববিরোধের জেরে ২জনকে কুপিয়ে, মারপিটে জখম করার অভিযোগ  দামুড়হুদার দুটি রাস্তার উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন কালে এমপি টগর -আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নমূখী সরকার দামুড়হুদায় বোরো ধান সংগ্রহের লটারী অনুষ্ঠিত 

এতিমখানার শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে মহল্লায় আগুন লাগালো হাফেজ কামরুজ্জামান

চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদার দশমীপাড়ার হাফেজ মো কামরুজ্জামানের কর্মকান্ডে হতবাক হয়েছেন মহল্লাবাসী। গতকাল শনিবার সকালে লুৎফুন নেছা এতিমখানার শিক্ষার্থীদের দিয়ে কবরস্থান সংলগ্ন পরিত্যক্ত গর্তে আগুন লাগিয়ে দিয়ে চলে যান হাফেজ মো কামরুজ্জামান। আগুন লাগানোর ঘন্টা খানেক পর সে আগুনের লেলিহান শিখা পাশ্ববর্তী হাজী মো বদর উদ্দিনের বাড়ির খড়ির গাদায় লেগে দাও দাও করে জ্বলতে থাকে। আগুনের লেলিহান শিখা আকাশের দিকে উঠতে থাকলে দৃষ্টি পড়ে প্রতিবেশীদের। এসময় ওই মহল্লার প্রতিবেশীদের ডাক চিৎকারে ছুটে আসে আশেপাশে থাকা লোকজন।

প্রতিবেশীদের বাড়ির পানি দিয়ে প্রায় আধাঘণ্টা যাবত আগুন নেভানোর চেষ্টার পর আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। এর কিছু সময় পর হাফেজ মো কামরুজ্জামান ঘটনাস্থলে আসলে স্থানীয় ও মহল্লাবাসীরা তাকে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার বিষয়ে জিঙ্গেস করলে তিনি বলেন প্রতিবেশীরা ‘ফু’ দিয়ে ওই বাড়ির খড়ির গাদায় আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। তার এমন কর্মকাণ্ডে ও কথাবার্তায় হতবাক হয়েছে স্থানীয় লোকজন ও মহল্লা বাসী। এক পর্যায়ে লোকজনের তোপের মুখে পড়ে স্থান ত্যাগ করে তিনি। স্থানীয় প্রতিবেশীরা বলেছেন, হাফেজ মো কামরুজ্জামান লুৎফুন নেছা এতিমখানা নামে একটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন। সেখানকার শিক্ষার্থীদের দিয়ে তিনি তার বাড়ী ও মাঠের কাজ কর্ম করান। তাদের ঠিকঠাক খেতেও দেন না তিনি। এদিকে, তিনি এই এতিমখানার নাম করে বিভিন্ন দাতা সংস্থা, সরকারি, বেসরকারি ও ব্যক্তি পর্যায়ে বিভিন্ন বরাদ্দ নিয়ে বেশ কয়েক বছরে বনে গেছের অর্থ ও সম্পদের মালিক। তার এই প্রতিষ্ঠান পরিচালনার সমস্ত বিষয়াদি তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী তুলেছেন মহল্লাবাসী ও স্থানীয়রা।#####

 

প্রসঙ্গঃ
জনপ্রিয় সংবাদ

চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

এতিমখানার শিক্ষার্থীদের মাধ্যমে মহল্লায় আগুন লাগালো হাফেজ কামরুজ্জামান

প্রকাশ : ০১:৩৭:২১ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৪ মার্চ ২০২৪

চুয়াডাঙ্গা জেলার দামুড়হুদার দশমীপাড়ার হাফেজ মো কামরুজ্জামানের কর্মকান্ডে হতবাক হয়েছেন মহল্লাবাসী। গতকাল শনিবার সকালে লুৎফুন নেছা এতিমখানার শিক্ষার্থীদের দিয়ে কবরস্থান সংলগ্ন পরিত্যক্ত গর্তে আগুন লাগিয়ে দিয়ে চলে যান হাফেজ মো কামরুজ্জামান। আগুন লাগানোর ঘন্টা খানেক পর সে আগুনের লেলিহান শিখা পাশ্ববর্তী হাজী মো বদর উদ্দিনের বাড়ির খড়ির গাদায় লেগে দাও দাও করে জ্বলতে থাকে। আগুনের লেলিহান শিখা আকাশের দিকে উঠতে থাকলে দৃষ্টি পড়ে প্রতিবেশীদের। এসময় ওই মহল্লার প্রতিবেশীদের ডাক চিৎকারে ছুটে আসে আশেপাশে থাকা লোকজন।

প্রতিবেশীদের বাড়ির পানি দিয়ে প্রায় আধাঘণ্টা যাবত আগুন নেভানোর চেষ্টার পর আগুন নেভাতে সক্ষম হয়। এর কিছু সময় পর হাফেজ মো কামরুজ্জামান ঘটনাস্থলে আসলে স্থানীয় ও মহল্লাবাসীরা তাকে আগুন লাগিয়ে দেওয়ার বিষয়ে জিঙ্গেস করলে তিনি বলেন প্রতিবেশীরা ‘ফু’ দিয়ে ওই বাড়ির খড়ির গাদায় আগুন লাগিয়ে দিয়েছে। তার এমন কর্মকাণ্ডে ও কথাবার্তায় হতবাক হয়েছে স্থানীয় লোকজন ও মহল্লা বাসী। এক পর্যায়ে লোকজনের তোপের মুখে পড়ে স্থান ত্যাগ করে তিনি। স্থানীয় প্রতিবেশীরা বলেছেন, হাফেজ মো কামরুজ্জামান লুৎফুন নেছা এতিমখানা নামে একটি প্রতিষ্ঠান পরিচালনা করেন। সেখানকার শিক্ষার্থীদের দিয়ে তিনি তার বাড়ী ও মাঠের কাজ কর্ম করান। তাদের ঠিকঠাক খেতেও দেন না তিনি। এদিকে, তিনি এই এতিমখানার নাম করে বিভিন্ন দাতা সংস্থা, সরকারি, বেসরকারি ও ব্যক্তি পর্যায়ে বিভিন্ন বরাদ্দ নিয়ে বেশ কয়েক বছরে বনে গেছের অর্থ ও সম্পদের মালিক। তার এই প্রতিষ্ঠান পরিচালনার সমস্ত বিষয়াদি তদন্ত করে তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়ার দাবী তুলেছেন মহল্লাবাসী ও স্থানীয়রা।#####