চুয়াডাঙ্গা ০৮:৫৬ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ১৮ জুন ২০২৪, ৪ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদঃ
চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ চুয়াডাঙ্গায় আন্ত‌জেলা অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় ৬ সদস্য  আটক; চেতনা নাশক ঔষধ উদ্ধার দামুড়হুদার ডুগডুগি বাজারে বিট পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার ফয়জুর রহমান-অপরাধ দমনে পুলিশ কে তথ্য দিয়ে সহায়তা করুন স্ত্রী‌কে সম্ভ্রমহা‌নি করার অপরা‌ধে ক‌বিরাজ‌কে জবাই ক‌রে হত্যা দামুড়হুদায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এমপি টগর-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় জনগণের কথা চিন্তা করে দামুড়হুদায় মাশরুম চাষ সম্প্রসারণে মাঠ দিবসে সাবেক মহাপরিচালক ড. হামিদুর রহমান -চুয়াডাঙ্গার মাটি কৃষির ঘাটি দামুড়হুদায় জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা দামুড়হুদার আটকবর মোড়ে পূর্ববিরোধের জেরে ২জনকে কুপিয়ে, মারপিটে জখম করার অভিযোগ  দামুড়হুদার দুটি রাস্তার উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন কালে এমপি টগর -আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নমূখী সরকার দামুড়হুদায় বোরো ধান সংগ্রহের লটারী অনুষ্ঠিত 

চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রার সঙ্গে বাড়ছে লোডশেডিং: হাসপাতালে রোগীর চাপ

তিন সপ্তাহ পর চলতি মাসের আট তারিখ থেকে চুয়াডাঙ্গায় ভয়াবহ তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়তে শুরু করেছে পল্লী বিদ্যুৎতের লোডশেডিং। প্রচন্ড গরমের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে লোডশেডিং বৃদ্ধি পাওয়ায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন।

 

রমজান মাসে ভয়াবহ দাবদাহে রোজদার ব্যবসায়ী, শ্রমজীবী ও খেটে খাওয়া মানুষ, শিশু, বৃদ্ধরা চরম দুর্ভোগে পোহানোর পর প্রায় তিন সপ্তাহ আবহাওয়া পরিবর্তন হওয়ার পর সস্তি পেলেও তিনদিন জেলায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় চুয়াডাঙ্গায়।তাপমাত্র বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে শুরু হয়েছে দিনে রাতে ব্যাপক লোডশেডিং। এতে করে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সাধারন খেটে খাওয়া মানুষ। হাসপাতাল গুলোতে বেড়েছে রোগীর চাপ।

 

দুপুর হলেই চলে যাচ্ছে বিদ্যুৎ।গরমে ভেজা কাপড় গায়ে জড়াচ্ছেন,গাছের ছায়ায় বসে সময় কাটাচ্ছেন অনেকে।রাতেও একই ভাবে ঘন্টায় যাচ্ছে বিদ্যুৎ যাওয়ার নিশ্চায়তা পাওয়া গেলেও কখন আসবে সে খবরও কারো জানা নেই।বেড়েগেছে হাতপাখার কদর দোকান গুলোতে ভিড়লেগে গেছে তাল পাতার হাতপাখা বিক্রির।হাসপাতালে অসুস্থ রোগীদের বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে গিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকতে হচ্ছে।

 

দিনে কম থাকলেও রাতে ঘন্টা ঘন্টায় দেওয়া হচ্ছে লোডশেডিং। গত তিনদিন (৮ মে)সোমবার সোমবার ৪১ডিগ্রি সেলসিয়াস,মঙ্গলবার ৪১,২ও আজ বুধবার বেলা তিনটায় চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৪০,৭ডিগ্রি সেলসিয়াস।
দামুড়হুদা উপজেলা সদরের আব্দুস ছাত্তার বলেন, ‘এমন গরম আগে কখোনো দেখিনি, রোদ গরমে বাইরে বের হওয়া যাচ্ছে না। বাইরে বেরুলে গা জ্বালা করছে। ফ্যান চালিয়ে কোনো মতে ঘরে থাকছিলাম তাও বিদ্যুৎ থাকছে না। দিনে একটু থাকলে রাতে ঘন্টায় ঘন্টা বিদ্যুৎ যাচ্ছে গরমে একটু শান্তিতে ঘুমাতে পারছি না। রাতের অর্ধেক বাড়ীর উঠানে বসে থাকতে হচ্ছে।

 

দামুড়হুদা উপজেলা পল্লিবিদ্যুৎ এর অভিযোগ কেন্দ্রে সুত্রে যানাগেছে,অতিরিক্ত তাপমাত্রার কারনে উৎপাদন কমে গেছে একারণে লোডশেডিং হচ্ছে। বর্ষা শুরু হলে তাপমাত্রা কমে গেলে বিদ্যুৎ স্বাভাবিক হয়ে যাবে। দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ ফারহানা ওয়াহিদ তানি বলেন, প্রচন্ড দাবদাহের কারনে গতকাল মঙ্গলবার থেকে হাসপাতানে ডায়রিয়া ও হিটস্টোকের রোগীর চাপ অনেকাংশে বেড়েছে। আউটরোরে ও রোগীর সংখা প্রায় দ্বীগুন হয়ে দাড়িয়েছে।

জনপ্রিয় সংবাদ

চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রার সঙ্গে বাড়ছে লোডশেডিং: হাসপাতালে রোগীর চাপ

প্রকাশ : ০৫:৩০:২১ অপরাহ্ন, বুধবার, ১০ মে ২০২৩

তিন সপ্তাহ পর চলতি মাসের আট তারিখ থেকে চুয়াডাঙ্গায় ভয়াবহ তাপমাত্রা বৃদ্ধির সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়তে শুরু করেছে পল্লী বিদ্যুৎতের লোডশেডিং। প্রচন্ড গরমের সঙ্গে পাল্লা দিয়ে লোডশেডিং বৃদ্ধি পাওয়ায় বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে জনজীবন।

 

রমজান মাসে ভয়াবহ দাবদাহে রোজদার ব্যবসায়ী, শ্রমজীবী ও খেটে খাওয়া মানুষ, শিশু, বৃদ্ধরা চরম দুর্ভোগে পোহানোর পর প্রায় তিন সপ্তাহ আবহাওয়া পরিবর্তন হওয়ার পর সস্তি পেলেও তিনদিন জেলায় দেশের সর্বোচ্চ তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় চুয়াডাঙ্গায়।তাপমাত্র বৃদ্ধি পাওয়ার সাথে সাথে শুরু হয়েছে দিনে রাতে ব্যাপক লোডশেডিং। এতে করে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে সাধারন খেটে খাওয়া মানুষ। হাসপাতাল গুলোতে বেড়েছে রোগীর চাপ।

 

দুপুর হলেই চলে যাচ্ছে বিদ্যুৎ।গরমে ভেজা কাপড় গায়ে জড়াচ্ছেন,গাছের ছায়ায় বসে সময় কাটাচ্ছেন অনেকে।রাতেও একই ভাবে ঘন্টায় যাচ্ছে বিদ্যুৎ যাওয়ার নিশ্চায়তা পাওয়া গেলেও কখন আসবে সে খবরও কারো জানা নেই।বেড়েগেছে হাতপাখার কদর দোকান গুলোতে ভিড়লেগে গেছে তাল পাতার হাতপাখা বিক্রির।হাসপাতালে অসুস্থ রোগীদের বিভিন্ন পরীক্ষা-নিরীক্ষা করাতে গিয়ে ঘণ্টার পর ঘণ্টা বসে থাকতে হচ্ছে।

 

দিনে কম থাকলেও রাতে ঘন্টা ঘন্টায় দেওয়া হচ্ছে লোডশেডিং। গত তিনদিন (৮ মে)সোমবার সোমবার ৪১ডিগ্রি সেলসিয়াস,মঙ্গলবার ৪১,২ও আজ বুধবার বেলা তিনটায় চুয়াডাঙ্গায় তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় ৪০,৭ডিগ্রি সেলসিয়াস।
দামুড়হুদা উপজেলা সদরের আব্দুস ছাত্তার বলেন, ‘এমন গরম আগে কখোনো দেখিনি, রোদ গরমে বাইরে বের হওয়া যাচ্ছে না। বাইরে বেরুলে গা জ্বালা করছে। ফ্যান চালিয়ে কোনো মতে ঘরে থাকছিলাম তাও বিদ্যুৎ থাকছে না। দিনে একটু থাকলে রাতে ঘন্টায় ঘন্টা বিদ্যুৎ যাচ্ছে গরমে একটু শান্তিতে ঘুমাতে পারছি না। রাতের অর্ধেক বাড়ীর উঠানে বসে থাকতে হচ্ছে।

 

দামুড়হুদা উপজেলা পল্লিবিদ্যুৎ এর অভিযোগ কেন্দ্রে সুত্রে যানাগেছে,অতিরিক্ত তাপমাত্রার কারনে উৎপাদন কমে গেছে একারণে লোডশেডিং হচ্ছে। বর্ষা শুরু হলে তাপমাত্রা কমে গেলে বিদ্যুৎ স্বাভাবিক হয়ে যাবে। দামুড়হুদা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের আবাসিক মেডিকেল অফিসার ডাঃ ফারহানা ওয়াহিদ তানি বলেন, প্রচন্ড দাবদাহের কারনে গতকাল মঙ্গলবার থেকে হাসপাতানে ডায়রিয়া ও হিটস্টোকের রোগীর চাপ অনেকাংশে বেড়েছে। আউটরোরে ও রোগীর সংখা প্রায় দ্বীগুন হয়ে দাড়িয়েছে।