চুয়াডাঙ্গা ০৯:১২ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৩ জুন ২০২৪, ৩০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সর্বশেষ সংবাদঃ
চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ চুয়াডাঙ্গায় আন্ত‌জেলা অজ্ঞান পার্টির সক্রিয় ৬ সদস্য  আটক; চেতনা নাশক ঔষধ উদ্ধার দামুড়হুদার ডুগডুগি বাজারে বিট পুলিশিং সভায় পুলিশ সুপার ফয়জুর রহমান-অপরাধ দমনে পুলিশ কে তথ্য দিয়ে সহায়তা করুন স্ত্রী‌কে সম্ভ্রমহা‌নি করার অপরা‌ধে ক‌বিরাজ‌কে জবাই ক‌রে হত্যা দামুড়হুদায় নবনির্বাচিত উপজেলা চেয়ারম্যান, ভাইস চেয়ারম্যান ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যানদের সংবর্ধনা অনুষ্ঠানে এমপি টগর-প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সব সময় জনগণের কথা চিন্তা করে দামুড়হুদায় মাশরুম চাষ সম্প্রসারণে মাঠ দিবসে সাবেক মহাপরিচালক ড. হামিদুর রহমান -চুয়াডাঙ্গার মাটি কৃষির ঘাটি দামুড়হুদায় জাতীয় ভিটামিন-এ প্লাস ক্যাম্পেইন অবহিতকরণ ও পরিকল্পনা সভা দামুড়হুদার আটকবর মোড়ে পূর্ববিরোধের জেরে ২জনকে কুপিয়ে, মারপিটে জখম করার অভিযোগ  দামুড়হুদার দুটি রাস্তার উন্নয়নমূলক কাজের উদ্বোধন কালে এমপি টগর -আওয়ামীলীগ সরকার উন্নয়নমূখী সরকার দামুড়হুদায় বোরো ধান সংগ্রহের লটারী অনুষ্ঠিত 

শ্রীলেখার আক্ষেপ,জাতে উঠতে পারছি না

ফাইল ফটো

“জাতে উঠতে পারছি না তো। কারণ অভিনেতা হওয়া তো এখন জলভাত হয়ে গিয়েছে।” রোববার সকালে শ্রীলেখা ঠিক এমন একটি বার্তা দিলেন। হঠাৎ কেন এমন কথা বললেন শ্রীলেখা?

 

ফেসবুকে শ্রীলেখা লেখেন, “জীবনে একটা ইডি, সিবিআই-এর ডাক পেলাম না!!! রোজ়ভ্যালি থেকে কুন্তল… ছিঃ ছিঃ” বহু বছর ধরে যে নায়িকা একই কোম্পানির গাড়ি ব্যবহার করছেন, সে কথাও উল্লেখ করেছেন তার পোস্টে। শ্রীলেখা আরও যোগ করেন, “আর পরের ছবির প্রযোজকের আশায়। ধুর ধুর! পতিবাদ থুরি প্রতিবাদ করছি।”

 

এ প্রসঙ্গে ভারতীয় গণমাধ্যমকে শ্রীলেখা বলেন, “জাতে উঠতে পারলাম না তো। বাংলা সিনেমা করে কত পারিশ্রমিক পাওয়া যায়, সেই ধারণা সকলেরই আছে। উঁচু দামি গাড়ি চড়ছ, ইডি সিবিআই ডাকছে, তার পর তা দাদা-দিদিদের ধরে ধামাচাপা দিতে পারছ কি না, সেটাই তো এখন ট্রেন্ড। এই সব দেখেও অনেকে চুপ থাকে। শ্রীলেখা এমনি এমনি কিছু বলে না। যার সম্পর্কে বলে সঠিক কারণেই বলে।’’

 

প্রসঙ্গত,কয়েক দিন ধরে খবরের শিরোনামে রয়েছেন অভিনেতা বনি সেনগুপ্ত। নিয়োগ দুর্নীতি মামলার জল গড়িয়েছে বহু দূর। যাতে প্রত্যক্ষ ভাবে না হলেও পরোক্ষে নাম জড়িয়েছে বনির। কারণ এই নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় আটক কুন্তল ঘোষের থেকে তিনি নাকি ৪০ লক্ষ টাকা দামের গাড়ি নিয়েছিলেন। তাই নিয়ে বনিকে একপ্রস্ত জেরাও করেছে ইডি। সেই রেশ ধরেই কটাক্ষের সুর শোনা গিয়েছিল প্রযোজক রানা সরকারের কণ্ঠে। এ বার তেমনই ইঙ্গিত শ্রীলেখার পোস্টে।

 

অবশ্য এই প্রসঙ্গেই শ্রীলেখা জানিয়েছেন কাউকে ব্যক্তি আক্রমণ করা তার উদ্দেশ্য নয়। অভিনেত্রী প্রশ্ন তুলেছেন, ‘‘ঘুণ ধরে যাওয়া এই সমাজব্যবস্থার বিরুদ্ধে আমার কথা বলা। যোগ্যতার নিরিখে কেন এখানে কাজ হবে না?’’ ইদানীং বিশিষ্টদের মধ্যে অনেকেই তাদের প্রতিবাদের মাধ্যম হিসাবে সমাজমাধ্যমকে বেছে নেন।

জনপ্রিয় সংবাদ

চুয়াডাঙ্গায় উন্নত ব্যবস্থাপনায় মাছ চাষের উপর প্রশিক্ষণ

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

শ্রীলেখার আক্ষেপ,জাতে উঠতে পারছি না

প্রকাশ : ০৮:০৭:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৩ মার্চ ২০২৩

“জাতে উঠতে পারছি না তো। কারণ অভিনেতা হওয়া তো এখন জলভাত হয়ে গিয়েছে।” রোববার সকালে শ্রীলেখা ঠিক এমন একটি বার্তা দিলেন। হঠাৎ কেন এমন কথা বললেন শ্রীলেখা?

 

ফেসবুকে শ্রীলেখা লেখেন, “জীবনে একটা ইডি, সিবিআই-এর ডাক পেলাম না!!! রোজ়ভ্যালি থেকে কুন্তল… ছিঃ ছিঃ” বহু বছর ধরে যে নায়িকা একই কোম্পানির গাড়ি ব্যবহার করছেন, সে কথাও উল্লেখ করেছেন তার পোস্টে। শ্রীলেখা আরও যোগ করেন, “আর পরের ছবির প্রযোজকের আশায়। ধুর ধুর! পতিবাদ থুরি প্রতিবাদ করছি।”

 

এ প্রসঙ্গে ভারতীয় গণমাধ্যমকে শ্রীলেখা বলেন, “জাতে উঠতে পারলাম না তো। বাংলা সিনেমা করে কত পারিশ্রমিক পাওয়া যায়, সেই ধারণা সকলেরই আছে। উঁচু দামি গাড়ি চড়ছ, ইডি সিবিআই ডাকছে, তার পর তা দাদা-দিদিদের ধরে ধামাচাপা দিতে পারছ কি না, সেটাই তো এখন ট্রেন্ড। এই সব দেখেও অনেকে চুপ থাকে। শ্রীলেখা এমনি এমনি কিছু বলে না। যার সম্পর্কে বলে সঠিক কারণেই বলে।’’

 

প্রসঙ্গত,কয়েক দিন ধরে খবরের শিরোনামে রয়েছেন অভিনেতা বনি সেনগুপ্ত। নিয়োগ দুর্নীতি মামলার জল গড়িয়েছে বহু দূর। যাতে প্রত্যক্ষ ভাবে না হলেও পরোক্ষে নাম জড়িয়েছে বনির। কারণ এই নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় আটক কুন্তল ঘোষের থেকে তিনি নাকি ৪০ লক্ষ টাকা দামের গাড়ি নিয়েছিলেন। তাই নিয়ে বনিকে একপ্রস্ত জেরাও করেছে ইডি। সেই রেশ ধরেই কটাক্ষের সুর শোনা গিয়েছিল প্রযোজক রানা সরকারের কণ্ঠে। এ বার তেমনই ইঙ্গিত শ্রীলেখার পোস্টে।

 

অবশ্য এই প্রসঙ্গেই শ্রীলেখা জানিয়েছেন কাউকে ব্যক্তি আক্রমণ করা তার উদ্দেশ্য নয়। অভিনেত্রী প্রশ্ন তুলেছেন, ‘‘ঘুণ ধরে যাওয়া এই সমাজব্যবস্থার বিরুদ্ধে আমার কথা বলা। যোগ্যতার নিরিখে কেন এখানে কাজ হবে না?’’ ইদানীং বিশিষ্টদের মধ্যে অনেকেই তাদের প্রতিবাদের মাধ্যম হিসাবে সমাজমাধ্যমকে বেছে নেন।